sSiteTitle

আন্তঃবিভাগ ফুটবলে চ্যাম্পিয়ন ফলিত গণিত

দায়িদ হাসান

ডিইউএমসিজেনিউজ.কম

প্রকাশিত : ১০:৫২ পিএম, ৭ নভেম্বর ২০১৭ মঙ্গলবার | আপডেট: ১১:০৮ পিএম, ৭ নভেম্বর ২০১৭ মঙ্গলবার

গণিত বিভাগকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন ফলিত গণিত বিভাগ

গণিত বিভাগকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন ফলিত গণিত বিভাগ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আন্তঃবিভাগ ফুটবল প্রতিযোগিতার দক্ষিণ অঞ্চলে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ফলিত গণিত বিভাগ। মঙ্গলবার বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে গণিত বিভাগকে টাইব্রেকারে হারিয়ে শিরোপা নিজেদের করে নেয় তারা।

ম্যাচের শুরুতে অগোছালো খেললেও সময় যাওয়ার সাথে সাথে নিজেদের গুছিয়ে নেয় দুপক্ষই। প্রথমে গোলের দেখা পায় ফলিত গণিত। দলের হয়ে সাইফুল হোসেন গোল করেন। পরবর্তীতে গণিতের হয়ে গোল পরিশোধ করেন সাজেদুল ইসলাম। নির্ধারিত সময়ের খেলা ১-১ গোলে শেষ হওয়ায় ম্যাচ গড়ায় ট্রাইবেকারে। সেখানে গণিত বিভাগকে ৪-২ গোলে হারিয়ে বিজয় উল্লাসে মাতে ফলিত গণিত বিভাগ।

অন্যদিকে এবার উত্তর অঞ্চল থেকে ফাইনালে পৌঁছেছে ইসলামিক স্টাডিস ও ইসলামের ইতিহাস বিভাগ। ইসলামিক স্টাডিস গত বছরের চ্যাম্পিয়ন। এবার ইসলামের ইতিহাসকে হারাতে পারলে টানা দুই বার শিরোপা জয়ের স্বাদ পাবে তারা। এই দুই দলের মধ্যে ফাইনাল খেলার তারিখ এখনো নির্ধারণ করা হয় নি। তবে দ্রুতই খেলাটি অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শারীরিক শিক্ষা কেন্দ্রের উপ-পরিচালক ও ফুটবল ইনচার্জ এস এম জাকারিয়া।

প্রতি বছর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে দুটি অঞ্চলে বিভিক্ত করে এই আন্তঃবিভাগ ফুটবল প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। চলতি সেশনে দক্ষিণ অঞ্চল থেকে মোট ৩২টি বিভাগ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে। অন্যদিকে উত্তর অঞ্চলে অংশগ্রহণকারী বিভাগের সংখ্যা ছিল ৪৫টি।

ঢাবির শারীরিক শিক্ষা কেন্দ্র জানায়, প্রতি বছরই আন্তঃবিভাগ ফুটবলে অংশগ্রহণকারীর সংখ্যা বাড়ছে। সেই সাথে বাড়ছে খেলার প্রতি শিক্ষার্থীদের আগ্রহ। এ সম্পর্কে জাকারিয়া বলেন, আমি ২০০০ সালে শারীরিক শিক্ষা কেন্দ্রে যোগ দিয়েছি। এরপর কখনও আন্তঃবিভাগ ফুটবলে দল কমতে দেখিনি। প্রতি বছরই কমপক্ষে নতুন একটি বিভাগ প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়।

তিনি আরও বলেন, এবারও দুটি নতুন বিভাগ প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছে। এ ছাড়া প্রিন্টিং অ্যান্ড পাবলিকেশন বিভাগও অংশ নিতে চেয়েছিল। তবে টুর্নামেন্ট শুরু হওয়ার পর আগ্রহ দেখানোয় এবার তারা সুযোগ পায়নি। সামনে থেকে হয়তো তারাও খেলবে।

একটা সময় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আন্তঃবিভাগ ফুটবল থেকে দারুণ সব খেলোয়াড় বের হয়ে আসতো বলে জানালেন শারীরিক শিক্ষাকেন্দ্রের আরেক উপ-পরিচালক মোঃ শাহজাহান আলী। তিনি বলেন, আমরা দেখেছি জাতীয় দলের খেলোয়াড়রা আমাদের টুর্নামেন্টে খেলেছে। আবার কখনও এখান থেকে উঠে আসা খেলোয়াড় জাতীয় দলে খেলেছে। তবে বর্তমানে এই সংখ্যাটা অনেক কমে গেছে। এর কারণ হিসেবে খেলোয়াড় কোটা তুলে দেয়া এবং খেলাধুলার ওপর কম গুরুত্ব দেয়ার বিষয়টিই তুলে ধরেছেন শাহজাহান আলী।

ঢাবির আন্তঃবিভাগ ফুটবলে চ্যাম্পিয়ন এবং রানারআপদের জন্য পুরস্কার হিসেবে থাকে ট্রফি, ক্রেস্ট, মেডেল এবং সার্টিফিকেট। কোনও কোনও বছর চ্যাম্পিয়নদের ৫ হাজার টাকা এবং রানারআপদের ৩ হাজার টাকা দিয়ে পুরস্কৃত করা হয় বলে জানিয়েছে শারীরিক শিক্ষাকেন্দ্র।

আয়োজকরা জানান, আন্তঃবিভাগ ফুটবলে অংশগ্রহণকারী প্রতিটি দল প্রথম ম্যাচের জন্য ৩ হাজার টাকা বরাদ্দ পায়। এরপর প্রতি ম্যাচের জন্য ২ হাজার টাকা করে বরাদ্দ দেওয়া হয়। শিক্ষার্থীদের অনুশীলনের সহায়ক হিসেবেই এ অর্থ দেওয়া হয় বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

আগামী সেশনে আন্তঃবিভাগ ফুটবল কেমন হবে জানতে চাইলে এস এম জাকারিয়া বলেন, আমরা আশা করছি এবারের চেয়ে আরও বড় টুর্নামেন্ট হবে সামনে। শিক্ষার্থীরা স্বতস্ফুর্তভাবে অংশগ্রহণ করবে। আমি সব বিভাগের শিক্ষকদের অনুরোধ করবো তারা যেন ছাত্রদের প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণে উৎসাহিত করেন।

তিনি আরও বলেন, খেলাধুলা করলে মানুষের মন সতেজ থাকে। পড়াশুনাও ভালো হয়। তবে যারা মনে করেন খেলাধুলার কারণে লেখাপড়ার ক্ষতি হয়, তাদের সেই ধারণা ভুল। আমি চাইবো সব বাবা-মা তাদের সন্তানদের খেলতে দেবেন। আর শিক্ষকরা সব সময় এ বিষয়ে শিক্ষার্থীদের উদ্বুদ্ধ করবেন।