Dhaka University Mass Communication and Journalism Department News Portal

ঢাবিতে প্রধানমন্ত্রী, ১৯৭১ ফুট আলপনা ক্যাম্পাসে

নম্রতা তালুকদার

ডিইউএমসিজেনিউজ.কম

প্রকাশিত : ১১:০৫ এএম, ১ সেপ্টেম্বর ২০১৮ শনিবার | আপডেট: ০৯:০৩ পিএম, ৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮ সোমবার

ঢাবিতে প্রধানমন্ত্রী, ১৯৭১ ফুট আলপনা ক্যাম্পাসে

ঢাবিতে প্রধানমন্ত্রী, ১৯৭১ ফুট আলপনা ক্যাম্পাসে

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়: টিএসসি পেরিয়ে রোকেয়া হলের দিকে যেতেই চোখে পড়লো মানুষের ভীড়। এগিয়ে যেতেই দেখা গেল রঙিন সাজে সাজানো হচ্ছে রাস্তা। রোকেয়া হল থেকে শুরু করে রঙের এই খেলা এগিয়ে চলছে সচিবালয় পর্যন্ত। ১ সেপ্টেম্বর (শনিবার) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আসেন। তার আগমন উপলক্ষ্যেই রোকেয়া হল থেকে সচিবালয় পর্যন্ত আঁকা হয় এই ১৯৭১ ফুট দৈর্ঘ্যের আলপনা। 

আলপনা আঁকার সার্বিক কর্মকাণ্ড পরিচালনা করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি ভিত্তিক বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন ও একমাত্র রাজনৈতিক ছাত্র সংগঠন ছাত্রলীগের সমন্বয়ে গঠিত ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সম্মিলিত শিক্ষার্থী সংসদ‘।

রোকেয়া হলের ছাত্রীদের জন্য নবনির্মিত ৭ই মার্চ নামের একটি ১০তলাবিশিষ্ট ভবন উদ্বোধনের উদ্দেশ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আসেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সে নিয়েই ক্যাম্পাসে চলছিলো সাজ সাজ রব। 

৭১ এর মুক্তিযুদ্ধ ও ৭ই মার্চের ভাষণকে স্মরণ করতে ৩১ অগাস্ট (শুক্রবার) পুরো দিনব্যাপী আঁকা হয় ১৯৭১ ফুট দৈর্ঘ্যের আর ৭ ফুট প্রস্থের এই আলপনা।

এর আগে বৃহস্পতিবার দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিক সমিতিতে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি সঞ্জিত চন্দ্র দাস এই আয়োজন নিয়ে কথা বলেন। লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, “১ সেপ্টেম্বর আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে আসবেন বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিষয়টি আমাদের সকলের জন্য গর্বের, আনন্দের ও অহংকারের। তার এই আগমনকে আমরা তার হৃদয় মন্দিরে একটি চিরস্মরণীয় জায়গায় প্রতিস্থাপিত করে দিতে চাই। আমরা জানি প্রধানমন্ত্রী সচিবালয়ের রাস্তা হয়ে রোকেয়া হলে আসবেন ৭ই মার্চ ভবন উদ্বোধন করতে। তাই আমরা চাই, তার আগমনের এই পুরো পথ আমাদের হৃদয় মাঝারে থাকা ভালোবাসার সবটুকু রঙ মিশিয়ে করা আলপনায় রঙিন করে তুলতে। 

তিনি বলেন, ‘আমরা মনে প্রাণে লালন করি আমাদের এই আলপনা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মনে চিরস্থায়ী জায়গা করে নেবে।

আলপনা আঁকার কার্যক্রম দেখতে আসা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নাঈম ফয়সালকে উদ্যোগটি সম্পর্কে তার মনোভাব জানতে চাইলে বলেন, “এটি নিঃসন্দেহে দারুণ একটি উদ্যোগ। ক্যাম্পাসকে নতুন করে সাজানো হচ্ছে। আশা করি সামনে এমন কার্যক্রম আরো বেশি দেখা যাবে।“

অপর শিক্ষার্থী তাসনিম দিবা বলেন, “ক্যাম্পাসে উৎসব উৎসব ভাব মনে হচ্ছে। রাস্তাগুলো দেখতে খুব ভাল লাগছে।“

আলপনা আঁকার কাজে যুক্ত থাকতে পেরে নিজেকে ভাগ্যবান মনে করছেন চারুকলা অনুষদের ছাত্র সজীব। তিনি বলেন, “এই আলপনার পেছনের যে ভাবনা তা আমাদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় অনুপ্রাণিত। মনে হচ্ছে নিজের হাতে আমাদের ক্যাম্পাসটাকে সাজাচ্ছি।“

ডিইউএমসিজেনিউজ/০১ সেপ্টেম্বর